1. rajubdnews@gmail.com : admin :
  2. 52newsbangla@gmail.com : News 52 Bangla : Nurul Huda News 52 Bangla
  3. 52newsbangla1@gmail.com : News 52 Bangla : Nurul Huda News 52 Bangla
সোমবার, ০৪ জুলাই ২০২২, ০৫:৩৭ অপরাহ্ন
সর্বশেষ সংবাদ :
কাপ্তাইয়ে ঈদের আগে টিসিবির পণ্য পেয়ে খুশি কাপ্তাইয়ে নাটক মঞ্চস্থ ও ২০ জন নাট্য ব্যক্তিত্বকে সম্মাননা প্রদান আশুগঞ্জ থানা পুলিশের অভিযানে ১ শ কেজি গাঁজাসহ গ্রেপ্তার ২ দাম একটু বেশি হলেও কাপ্তাইয়ে পাহাড়ী গরুর কদর বেশি আইনমন্ত্রীকে নিয়ে কটুক্তি করায় আখাউড়ায় ভিপি নূরের বিরুদ্ধে ঝাড়ু মিছিল কুষ্টিয়ায় মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের অভিযানে ১ মাদক ব্যবসায়ী আটক কাপ্তাইয়ে কর্ণফুলী নদী হতে হরিণ উদ্ধার ন্যাশনাল পার্কে অবমুক্ত কাউখালীতে সর্বস্তরের শিক্ষক সমাজের আহ্বানে প্রতিবাদী মানববন্ধন কাউখালীতে কৃষি প্রণোদনা কর্মসূচির আওতায় সার ও আমন বীজ বিতরণ নড়াইলের মির্জাপুরে শিক্ষক লাঞ্চিতের ঘটনায় শিক্ষক আক্তার হোসেন কে আ.লীগ থেকে অব্যাহতি

কমলগঞ্জ সহ ৩০টি পৌরসভা উন্নয়নে ১৭৫১কোটি ৫০লাখ টাকার প্রকল্প

প্রতিবেদকের নাম :
  • আপডেটের সময় : শনিবার, ২৯ জুন, ২০১৯

জহিরুল ইসলাম, মৌলভীবাজার খেকে : কমলগঞ্জ সহ ৩০টি পৌরসভা উন্নয়নে ১৭৫১কোটি ৫০লাখ টাকার প্রকল্প একনেক সভায় অনুমোদন। মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জ, বড়লেখাসহ দেশের ১৯ জেলায় ৩০টি পৌরসভায় নিরাপদ পানি সরবরাহ ও স্যানিটারি সুবিধা দিতে পৌরসভার সক্ষমতা বৃদ্ধির প্রকল্প নিয়েছে সরকার।

এ প্রকল্পে ব্যয় ধরা হয়েছে ১৭৫১ কোটি ৫০ লাখ টাকা। বিষয়টি ইতোমধ্যেই জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির (একনেক) সভায় অনুমোদন পেয়েছে।

চলতি বছরের মার্চ থেকে ২০২৩ সালে জুনের মধ্যে এটি বাস্তবায়ন করবে স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদফতর। এর মাধ্যমে নির্ধারিত এলাকার পৌরবাসিন্দারা পানি ও স্যানিটেশন সুবিধা পাবেন বলে আশা করছেন সংশ্লিষ্টরা।

পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান সাংবাদিকদের জানিয়েছেন, সরকার সবার জন্য সুপেয় পানি নিশ্চিত করতে চায়। সেই সঙ্গে স্যানিটেশন ব্যবস্থাও উন্নয়ন করতে হবে। উন্নত রাষ্ট্র গড়তে হলে সব দিকেই উন্নয়ন করতে হবে। শহর থেকে গ্রাম পর্যন্ত উন্নয়ন ছড়িয়ে দিতে হবে। এসকল কাজ তারই ধারাবাহিক অংশ। আশা করছি পৌরসভার নাগরিকরা এসবের মাধ্যমে সুবিধাপ্রাপ্ত হবেন।

সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, প্রকল্প এলাকায় পানির নিরাপত্তা ও স্যানিটেশনে সুযোগ-সুবিধা বাড়বে। একনেক চেয়ারপার্সন ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে একনেক সভায় প্রকল্পটি অনুমোদন দেয়া হয়।

প্রকল্পের প্রেক্ষাপট হিসেবে জানা গেছে, যে সকল পৌরসভায় পাইপলাইনের মাধ্যমে পানি সরবরাহের যথাযথ ব্যবস্থা নেই সে সকল পৌরসভায় পানি সরবরাহের জন্য ইতিপূর্বে অধিদফতর ১৪৬টি পৌরসভার মাস্টারপ্ল্যান প্রস্তুত করে ২০১৪ সালে। ১৪৬টি পৌরসভার ২৩টি আইডিবি অর্থায়নে, ৩২টি সরকারী অর্থায়নে করার জন্য সম্প্রতি প্রকল্প নেয়া হয়। অবশিষ্ট পৌরসভাগুলো থেকে ৩০টি পৌরসভায় বিশ্বব্যাংক আর্থিক সহযোগিতা করবে বলে প্রস্তাব করে। এই প্রকল্পে ৭৯ কোটি ৫০ লাখ টাকা সরকারী অর্থায়ন আর বাকি ১৬৭২ কোটি টাকা প্রকল্প সাহায্য হিসেবে পাওয়া গেছে বলেও জানা যায়।

প্রকল্পের উদ্দেশ্য হলো, নির্ধারিত ৩০টি পৌরসভায় পাইপলাইনে পানি সরবরাহ করা, কঠিন বর্জ্য ব্যবস্থাপনা ও ফিক্যাল স্লাজ ম্যানেজমেন্টসহ সার্বিক স্যানিটেশন ব্যবস্থার উন্নয়ন করা। পৌরসভায় ড্রেনেজ ব্যবস্থার উন্নয়ন করা। ওয়াটার ও স্যানিটেশন কার্যক্রমে পৌরসভাসমূহকে জরুরী সহায়তা, পৌরসভার ওয়াটার সাপ্লাই ও স্যানিটেশন ব্যবস্থার ওপর জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদফতরের সক্ষমতা বৃদ্ধিও অন্যতম উদ্দেশ্য। একনেক সভায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নির্দেশনা দিয়েছেন যে শুধু পৌরসভা এলাকায় নয় ইউনিয়ন পর্যায়েও পানির সরবরাহ নিশ্চিত করার।

সিলেট বিভাগের বড়লেখা, কমলগঞ্জ ও তাহিরপুর ছাড়াও যে সকল পৌরসভায় এটি বাস্তবায়ন করা হবে সেগুলো হলো-নারায়ণগঞ্জ জেলার তারাবো পৌরসভা, টাঙ্গাইলের মধুপুর, ধনবাড়ী, ভুয়াপুর পৌরসভা, রাজবাড়ীর গোয়ালন্দ পৌরসভা, ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আখাউড়া, চট্টগামের বাঁশখালী, চান্দনাইশ পৌরসভা, কুমিল্লার হোমনা, দেবিদ্বার পৌরসভা, ফেনীর পরশুরাম, লক্ষ্মীপুরের রামগতি, নোয়াখালীর সেনবাগ, বগুড়ার কাহালু ও শিবগঞ্জ পৌরসভা।

এছাড়াও জয়পুরহাট জেলার পাঁচবিবি, আক্কেলপুর পৌরসভা, নাটোরের বনপাড়া, বড়াইগ্রাম পৌরসভা, চাপাইনবাগঞ্জের নাচোল পৌরসভা, রাজশাহীর কাটাখালী, তাহিরপুর, বাঘা পৌরসভা, সিরাজগঞ্জের রায়গঞ্জ ও উল্লাপাড়া, যশোরের চৌগাছা, মেহেরপুরের গাংনি পৌরসভা ও জামালপুরের ইসলামপুর পৌরসভা।

প্রকল্পের প্রধান কার্যক্রমের মধ্যে রয়েছে পৌরসভাগুলোর পাইপলাইনে পানি সরবরাহের ব্যবস্থা করা, ফিক্যাল স্ল্যাজ, কঠিন বর্জ্য ব্যবস্থাপনা ও ট্রিটমেন্ট প্লান্ট স্থাপন করা, ড্রেনেজ ব্যবস্থা স্থাপন ও উন্নয়ন করা, ৯০টি পাবলিক টয়লেট স্থাপন করা, বাড়িঘরে উন্নত ল্যাট্রিন নির্মাণ হবে নয় হাজার, বিদ্যমান পানির উৎসগুলো পুনরুজ্জীবিতকরণ, পানির মিটার স্থাপন, গারবেজ ট্রাক ক্রয়, পৌরসভার জন্য ভেকুসংগ্রহসহ অন্য যন্ত্রপাতিও সংগ্রহ করা হবে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই বিভাগের আরও খবর
2019 All rights reserved by |Dainik Donet Bangladesh| Design and Developed by- News 52 Bangla Team.
Theme Customized BY News52Bamg;a